আরোহীচিচিঙ্গা

চিচিঙ্গা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

চিচিঙ্গা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

বৈজ্ঞানিক নামঃ Tricosanthes cucumerina linn.
পরিবারঃ Cucumbitaceae
ইংরেজি নামঃ Snake gourd

পরিচিতি

চিচিঙ্গা মৌসুমি লতানো উদ্ভিদ। লতা ও পাতা নরম এবং গায়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নমর লোম থাকে। লতার গাঁটে আকর্ষি থাকে এবং এ আকর্ষির সাহায্যে উদ্ভিদটি মাচায়, বেড়ায় বা অন্য গাছকে আঁকড়ে ধরে উপরে উপঠে। পাতা পাঁচ কোণাবিশিষ্ট এবং এতই নরম যে প্রখর রোদে পাতা টলে যায়। চিচিঙ্গা গাছে বর্ষার শুরুতে সাদা ফুল ফােটে। লাউ, কুমড়ার মতো চিচিঙ্গায় স্ত্রী ও পুরুষ ফুল একই গাছে ধরে। স্ত্রীফুল থেকে বর্ষাকালে লম্বা ফল ধরে, ফল এক মিটার পর্যন্ত লম্বা ও ৬-৭ সে.মি. ব্যাসের হয়। গাঢ় সবুজ রঙ্গের ফলের গায়ে লম্বালম্বিভাবে সাদা রেখা/ডোরাকাটা থাকে। এজন্য এক অনেকে রেখাও বলে থাকে। অঞ্চলভেদে এটিকে কুশি বা কৈডা বলা হয়ে থাকে। এটি গ্রীষ্ম ও বর্ষ মৌসুমের একটি সুস্বাদু সবজি। ফল পাকলে হলুদ বা কমলা চ্যাপ্টা ও কিনার ঢেউখেলানো মেটে রঙের একাধিক বীজ পাওয়া যায়।


বিস্তৃতি

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এর আদি নিবাস। বাংলাদেশের সব অঞ্চলে এটি চাষ হয়। এ গণে প্রজাতির সংখ্যা ২৫টি।

ঔষধি গুন

১। চিচিঙ্গা অরুচি এবং অগ্নিমান্দ্য দু’টিতেই কার্যকরী। চিচিঙ্গা সেদ্ধ করে অল্প লবণ ও মরিচের গুড়া মিশিয়ে খেলে অরুচি চলে যায়। আবার চিচিঙ্গার রস করে দেড় চা চমচের সাথে একটু চিনি মিশিয়ে সকাল-বিকাল কয়েকদিন খেলে অগ্নিমান্দ্য দূর হবে।

২। চর্মরোগে প্রথম অবস্থায় চিচিঙ্গার লতা ও পাতা একত্রে বেটে রস করে ২ চা চামচ করে সকালে খেতে হবে এবং ব্যধি স্থানে ঐ রস লাগাতে হবে। এতে ২-৩ দিনের মধ্যে উপকার পাবেন।

৩। পাকা চিচিঙ্গার বীজ গুড়া করে প্রতিদিন সকালে ৫০০ মি.গ্র. করে পানিতে মিশিয়ে খেতে হবে। এতে কৃমির উপদ্রব প্রশমিত হবে।

৪। মেদৃদ্ধি বা মুটিয়ে যাওয়ার কারণে অনেকের মাসিক কমতে কমতে একেবারে বন্ধ হয়ে যায় । এমন অবস্থায় চিচিঙ্গার লতা ও পাতা একত্রে ছেঁচে রস করে ১ চা চামচ পরিমাণ নিয়ে সমান পরিমাণ পানি মিশিয়ে হালকা গরম করে সকালে ও বিকেলে কয়েকদিন খেলে মাসিক স্বাভাবিক হয়ে যাবে।


Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker