Home » তাল এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

তাল এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

তাল এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

তাল এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

বৈজ্ঞানিক নাম: Borassus flabellifer Linn. Syn. B. flabelliformis Roxb.
পরিবার: Palmae
ইংরেজি নাম: Palm, Asian Palmyra Palm

পরিচিতি
তাল বৃহত্তর পাম জাতীয় দীর্ঘজীবী উদ্ভিদ। কাণ্ড সরল, উন্নত, গোলাকৃতি। কাণ্ডের মাথায় গুচ্ছবদ্ধ পাতা যার অধিকাংশ ঊর্ধ্বমূখী থাকে। তাল খেজুর র্গােছর মতো। স্ত্রী পুরুষ আলাদা গাছ, যা প্রস্ফুটনের সময় ছাড়া আলাদা করা যায় না। গ্রীস্মকাল তাল পাকার সময়। তবে কিছু কিছু গাছ সারা বছরই ফলন দিয়ে থাকে। তালের কাঁদি সাধারণত আধা থেকে এক মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। প্রতি কাঁদিতে ২০/২৫টি পর্যন্ত তাল হতে দেখা যায়। প্রতিটি ফলে ১-৩টি বীজ থাকে। কাঁচা পাকা তালের ফল, রস, গুড় এমনকি অংকুরিত তালের আঁটি সবই সুস্বাদু ও প্রিয় খাবার। তালের কাঠ ও পাতা সবই মূল্যবান। মাটি ক্ষয়রোধে গাছ অতি উপকারী। পুরুষ ও স্ত্রী দু’ধরনের গাছ থেকেই রস পাওয়া যায়। গাছ প্রতি বছরে ২০০-৩৫০টি ফল ও ২০০-৩৫০ লিটার রস পাওয়া যায়।


বিস্তৃতি
মধ্য আফ্রিকা তালের আবাসভূমি। তবে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এটি বেশি দেখা যায়। এ গণে প্রজাতির সংখ্যা ৩টি।

ঔষধি গুনাগুন
১। অনেকে আছেন অনর্গল কথা বলেন, বকবকানিতে সকলেই বিরক্ত কিন্ত এর যেন শেষ নেই। এরুপ ক্ষেত্রে এক থেকে দেড় কাপ টাটকা তালের রস সকাল-বিকাল কয়েকদিন দু’বেলা খাইয়ে দেবেন। এতে উপকারিতা প্রত্যক্ষ করতে পারবেন।

২। অল্প পরিশ্রমে যারা ক্লান্ত হয়ে পড়েন তারা ৩/৪ বছর বয়সের তালগাছের ৮ গ্রাম আন্দাজ মাথি বেটে এক কাপ দুধের সাথে মিলিয়ে ছেঁকে প্রত্যহ সকালে খাবেন। এভাবে কয়েকদিন খেলে অল্প পরিশ্রমে ক্লান্তি দূর হবে।



৩। (ক) পুরোনো কাশি, (খ) বমি বমি ভাব, (গ) পুরুষত্বহীনতা ও (ঘ) বুক ধরফড় করায় ৩-৪ চা চামচ করে তালের রস দুধে মিশিয়ে সকালে-বিকেলে কয়েকদিন খেলে এসব দূর হবে।

৪। যাদের প্রায়ই ভালো ঘুম হয় না এবং বুক ধড়ফড় করে তারা কচি তালপাতার ডাঁটা ২০-২৫ সে.মি. লম্বা করে কেটে একটু থেঁতো করে আগুনে ছেঁকে তার থেকে চেপে রস বের করে সেই রস থেকে ২/৩ চা চামচ একটু দুধে মিশিয়ে কয়েক দিন খাবেন। এতে ঐ অনিদ্রা চলে যাবে।

৫। শ্বেত প্রদরে ভুগতে থাকলে আধা কাপ তালের টাটকা রস সকারে ও বিকালে দু’বার খেলে এর উপশম হবে।

৬। তাল জটা অম্বলে উপকারী তাই অম্বলের ধাতে পেটের ব্যাথা হলে কাঁটা তাল জটা টুকরা করে কেটে শুকিয়ে হাঁড়িতে পুরে মুখ বন্ধ করে পোড়াতে হবে। এটিকে বলে অন্তর্ধূমে পোড়ানো। এ পোড়ানো ছাই মিহি গুঁড়া করে এর থেকে আধা গ্রাম করে নিয়ে সকালে ও বিকেলে পানিসহ খেতে হবে। এতে এ রোগের উপশম হবে।

 

Chemical Composition
(a) Sucrose (b) Butyric acid (Bhattacharia, 1978). plant Juice contain- (a) riboflabin (b) Vitamins B-Complex (Ghani, 2003)



Sending
User Review
0% (0 votes)







past