Home » নাগেশ্বর এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন
নাগেশ্বর বৃক্ষ

নাগেশ্বর এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

নাগেশ্বর এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

নাগেশ্বর এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

বৈজ্ঞানিক নাম: Mesua Ferra Linn.
পরিবার: Guttiferae
ইংরেজি নাম: Ceylon Ironwood

পরিচিতি
নাগেশ্বর মাঝারি আকারের ঘন শাখা-প্রশাখাবিশিষ্ট চিরসবুজ গাছ। ছোট অবস্থায় দেখতে পিরামিড আকৃতির এবং আকর্ষীণীয়। এজন্য শোভাবর্ধনকারী গাছ হিসেবে রোপণ করা হয়। পাতা বর্শাকৃতির মসৃণ, কচি অবস্থায় লাল হলেও পরে সবুজ হয়। পাতা ৫-১০ সে.মি. পর্যন্ত লম্বা হয়, বোঁটা ছোট। শাখার অগ্রভাগের পাতার কক্ষে সুগন্ধাযুক্ত সাদা ফুল ফোটে। ফুলের আবরণ (বৃতি) শক্ত মোটা, এর মধ্যে ১-৪টি শক্ত উজ্জ্বল ধূসর বর্ণের বীজ থাকে। ফেব্রুয়ারি-এপ্রিল মাসে ফুল ও সেপ্টেম্বর মাসে ফল হয়।


বিস্তার
ভারত ও মালয়েশিয়া নাগেশ্বরের আদি নিবাস হলেও চট্টগ্রামে পাওয়া যায় বলে কিছু পুরোনো বইয়ে উল্লেখ আছে। এই গণে প্রজাতির সংখ্যা ৩।

ঔষধি গুনাগুন
১। শ্বেতপ্রদরের সাথে পরিচিত নন, এমন মায়েরা কম আছেন। এতে শরীরের লাবণ্য নষ্ট হয়ে যায়। এরুপ হলে ৫০০ গ্রাম নাগেশ্বর ফুলচূর্ণ ও আধা চামচ আতপ চাল- ধোয়া পানিসহ প্রতিদিন সকাল-বিকাল দু’বার খেলে ২/৩ দিনের মধ্যেই সেরে যাবে।

২। পিত্তপ্রধান জ্বরে ৭৫০ মি.গ্রা. নাগেশ্বর ফুলচূর্ণ দিনে একবার বা দু’বার খেলে ২ দিনের মধ্যেই জ্বর সেরে যাবে।



৩। শীরের বিভিন্ন পাঁটগুলো মাঝে মাঝে ফোলে গেঁটেবাত হলে। এক্ষেত্রে নাগেশ্বর ফুল বেটে গরম করে ফোলায় প্রলেপ দিলে উপশম হবে।

৪। গায়ের গামে দুর্গন্ধ হলে গোসলের আগে ১০/১৫ গ্রাম নাগেশ্বর ফুল বেটে গায়ে মেখে আধা ঘন্টা গোসল করে ফেলুন, দেখবেন গন্ধ আর নেই।

 

Chemical Composition

(a) Coumarins (Chakrabarty & Das, 1966), (b) xanthones (Gunasekera et al, 1975), (c) flavonoids (Subramanyam et al, 1976) (d) few terpenoids (Gupta et al, 1936) (e) steroids (Chow & Quon, 1968).


Sending
User Review
0% (0 votes)