Home » অপরাজিতা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

অপরাজিতা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

অপরাজিতা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

অপরাজিতা এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

বৈজ্ঞানিক নামঃ Clitoria ternatea Linn.
পরিবারঃ Papilionaceae
ইংরেজি নামঃ Butterfly Pea

পরিচিতি

অপরাজিতা একটি বর্ষজীবী লতানো উদ্ভিদ। বাড়ি বা বাগানের তোরণ অথবা বেড়ার ধারে শোভাবর্ধনের জন্য এটি লাগানো হয়। পাতা যৌগিক, মধ্যশিরা ৮-১০ সে.মি. লম্বা, উভয় পাশে শীর্ষসহ ৫/৭টি ডিম্বাকৃতি পত্রক বের হয়। সাদা নীল ও কোথাও কোথাও বেগুনি রঙের ফুল দেখতে পাওয়া যায়। ফুল দেখতে অনেকটা বনফুলের আকৃতির। কমবেশি সারা বছরই অপরাজিতা ফুল হয়।

বিস্তৃতি দেশের সর্বত্রই অপরাজিতা দেখা যায়। এশিয়া ও আফ্রিকা এর আদি নিবাস।


ঔষধি গুন

১। অপরাজিতায় স্যাপোনিন (Saponin) বিদ্যমান, এ রাসায়নিক উপাদানটি কাশি বহিষ্কারক হিসেবে কাজ করে (Ghani, 2002) তাই যাদের কাশতে কাশতে চোখে জল আসে, কফ বেরোয় না তাদের আধা কাপ গরম জলের সাথে ১ চা চামচ অপরাজিতা শিকড়ের রস মিশেয়ে মুখে ৫ মিনিট রেখে পরে গরগড়া করে ফেলতে হবে। এতে উপকার পাবেন।

২। শীতকালে পানি ব্যবহারের কাজ অনেকেই কম করেন, এতে খোসপাঁচড়া দেখা দেয়। এতে অপরাজিতা লতা ও পাতার ক্বাথ গায়ে মাখলে খোসপাঁচড়া সেরে যায়। অপরাজিতায় বিদ্যামান ট্যানিন এ ভুমিকা পালন করে। ট্যনিনের বিক্রিয়ার ধরন সম্পর্কে ইতঃপূর্বে অনন্তমূল পোস্টে আলোচনা করা হয়েছে

৩। মূর্ছা (Hystria) রোগে অপরাজিতার মূল, লতা,পাতা থেঁতো করে ১ চ চামচ কোনোভাবে খাওয়াতে পারলে জ্ঞান ফিরে আসবে।

৪। অপরাজিতার মূল ও লতা থেঁতো করে ২/৩ দিন নস্যি টানলে আধকপালে রোগ সেরে যায়।

৫। বৃদ্ধ বয়সে অনেকের বারবার প্রস্রাব হয় অথচ পরিমাণে কম। বালকদেরও এরকম হতে পারে। এ অবস্থায় অপরাজিতার মূল ও লতার রস ১ চা চামচ গরম দুধের সাথে মিশিয়ে  দিনে ২ বার খেতে হবে। অপ্রাপ্তবয়স্কদের মাত্রা অর্ধেক (Bhattacharia, 1977)।

৬। শ্লেষ্মাজনিত কারণে স্বরভেঙ্গ হলে দশ গ্রাম  লতাপাতা থেঁতো করে ৪/৫ কাপ পানিতে সেদ্ধ করে এক কাপ থকতে নামিয়ে ছেঁকে নিতে হবে। এই নির্যাস ১৫ মিনিট করে মুখে রেখে ফেলে দিতে হবে। এতে ৪/৫ দিনের মধ্যে স্বর স্বাভাবিক হয়ে আসবে।


Sending
User Review
0 (0 votes)







past